চাকরির পেছনে ছোটার মানসিকতা পরিবর্তন করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী     নানা আয়োজনে ড. ওয়াজেদ মিয়ার জন্মবার্ষিকী পালিত     পরমাণুবিজ্ঞানী ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়ার জন্মদিন আজ     চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন ২৯ মার্চ, বগুড়া ও যশোরে উপনির্বাচন একইদিন     ডেঙ্গুবাহী মশা নিধনে সমন্বিতভাবে কাজ হচ্ছে : তাজুল ইসলাম     কর ফাঁকিবাজদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে : দুদক চেয়ারম্যান     রাজধানীতে ডিস ব্যবসায়ি হত্যা মামলায় ৯ জনের যাবজ্জীবন     সংসদে কোম্পানি (সংশোধন) বিল ২০২০ এর রিপোর্ট উপস্থাপন    

ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ হচ্ছে ৯-৩১ অক্টোবর

  সেপ্টেম্বর ০৮, ২০১৯     ৬১     ১৪:৫৯     জাতীয় সংবাদ
--

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক : অক্টোবরের ৯ থেকে ৩১ তারিখ পর্যন্ত মোট ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু।

তিনি বলেন, এ সময়টায় মা ইলিশ ডিম পাড়ে। যদিও সারাবছর ডিম পাড়ে তবে এসময়ে ডিম পাড়ে ৮০ শতাংশ ইলিশ। আর এই ডিম পাড়ে মূলত মিঠা পানিতে। তাই আশ্বিনের পূর্ণিমার চারদিন আগে এবং পূর্ণিমার পর ১৮ দিন মোট ২২ দিন দেশের উপকূলীয় অঞ্চল, নদীর মোহনাসহ যেসব জেলা ও নদীতে ইলিশ পাওয়া যায় সেখানে মাছধরা নিষিদ্ধ থাকবে।

আজ রোববার সচিবালয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা জানান।

সভা শেষে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু বলেন, ইলিশ নিষিদ্ধের সময় যে সব জেলার জেলেরা মাছ ধরার উপর নির্ভরশীল তাদের খাদ্য সহযোগিতা দেয়া হবে। এসময়ে মাছ পরিবহন, গুদামজাতকরণ, বাজারে বিক্রি নিষিদ্ধ থাকবে। এটা তখন বেআইনি হবে।

খাদ্য সহায়তায় দুর্নীতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে- এমন প্রশ্নের জবাবে মৎস্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়ে আমি ঢাকা, চট্টগ্রামে চ্যালেঞ্জ করছি। আপনারা নির্দিষ্ট করে দেখান। আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীসহ অন্যরা তৎপর ছিলেন। স্থানীয় প্রতিনিধিসহ জেলে প্রতিনিধিদের মাধ্যমে চাল বিতরণ করা হয়েছে।

নিষিদ্ধ সময়ে পার্শ্ববর্তী দেশের মাছ ধরার ট্রলার আমাদের সমুদ্রসীমা থেকে ইলিশ নিয়ে যায় এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিদেশ থেকে বাইরের কোনো জাহাজ আসতে পারে না। আমাদের কোস্টগার্ড নেভির কর্মকর্তারা তৎপর রয়েছেন। তবে আগে আমাদের কিছু জাহাজ অন্যদের জলসীমায় চলে যেত। কারণ তখন আমাদের জলসীমা নির্দিষ্ট ছিল না।

‘আমরাও এতো শক্তিশালী ছিলাম না। এখন আমাদের জরিপ জাহাজসহ অনেক জাহাজ রয়েছে, হেলিকপ্টার রয়েছে, রাডার রয়েছে- এগুলো আমরা সব সময় ব্যবহার করি। আর সীমানা তো দেয়াল তোলে না। তাই দু’এক মাইল এদিক-সেদিক হতে পারে। আমাদের দেশে যখন মাছ ধরা বন্ধ থাকে তখন কোনো মাছ ধরা ট্রলার আমাদের দেশে ঢুকতে পারে না।

আশরাফ আলী খান বলেন, আমাদের ৬৫ দিন মাছ ধরা বন্ধ ছিল। এর ফলে আমাদের মাছের উৎপাদন দ্বিগুণ হয়েছে। বিশেষ করে ইলিশ মাছের যে আকাল ছিল সেটা কমেছে। ইলিশ মাছে হাট-বাজার সয়লাব হয়ে গেছে। সমুদ্রসহ নদীর মোহনাগুলোতে মাছের বিচরণ বেড়েছে।

উত্তরণবার্তা/এআর
 



বাধাহীন মাহির ‘মন দেব মন নেব’

  ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২০

পুরনো খবর