দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী     ঢাকা সেনানিবাসে যান চলাচল সীমিত থাকবে বৃহস্পতিবার     ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত হজের প্রাক নিবন্ধন স্থগিত     এসএ গেমসের জন্য বাংলাদেশ দল ঘোষণা     মিসর থেকে বিমানে করে পেঁয়াজ আসছে আজ     মেসির শেষ মুহূর্তের গোলে পরাজয় এড়াল আর্জেন্টিনা     পদ্মা সেতুর আড়াই কিলোমিটার দৃশ্যমান হচ্ছে আজ     এই বড় বড় মাছ, নদীর খুব স্বাদের মাছ    

তৃণমূলকে একই সুতোয় গাঁথছে আওয়ামী লীগ

  অক্টোবর ২৮, ২০১৯     ৩৪     ১২:২০     রাজনীতি
--

উত্তরণবার্তা ডেস্ক : আওয়ামী লীগের তৃণমূলকে আরো বেশি সুসংগঠিত করতে এবং সংগঠনের বর্তমান পরিস্থিতিসহ তৃণমূল নেতাদের সার্বিক তথ্য একই জায়গায় আনতে কাজ শুরু করেছে আওয়ামী লীগ।

এর মাধ্যমে এমন একটি ডাটাবেজ করার পরিকল্পনা করছে দলটি, যেখানে সব ধরনের তথ্যের সন্নিবেশ ঘটবে। থাকবে নেতাদের পরিচয়, সংগঠনের অবস্থান, সাংগঠনিক পরিস্থিতিসহ ১৩ ধরনের তথ্য। প্রাথমিকভাবে রাজশাহী আর রংপুর বিভাগে এই প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

আওয়ামী লীগের আগামী সম্মেলনকে সামনে রেখে এরই মধ্যে বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় সম্মেলন হচ্ছে। এসব সম্মেলনে দেশের একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে ছুটছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। নতুন সম্মেলনের মাধ্যমে ঝিমিয়ে পড়া তৃণমূল আবারো প্রাণ ফিরে পাচ্ছে।

দলীয় সূত্র বলছে, দলের আটটি বিভাগীয় শহরের দায়িত্বে আছেন চার যুগ্ম সম্পাদক এবং আট সাংগঠনিক সম্পাদক। তারা তৃণমূলে গিয়ে সেখানকার রাজনীতি এবং নেতা-কর্মীদের আবেগ অনুভূতি, চাওয়া-পাওয়ার চিত্র দলীয় হাইকমান্ডকে জানাচ্ছেন। এতদিন তৃণমূল নেতাদের পরিচয় এবং তাদের তথ্য বিচ্ছিন্নভাবে সংগ্রহে থাকলেও সেগুলোকে ডাটাবেজ তৈরির মাধ্যমে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের আওতায় আনা হচ্ছে। বিশেষ করে রাজশাহী ও রংপুরে তৃণমূলের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে জেলা থেকে ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাদের কাছে একটি ফর্ম দেয়া হচ্ছে। এই ফর্মে তারা নিজের পরিচয়সহ সংগঠনের সার্বিক চিত্র সেখানে লিখছেন। সেগুলো জেলাভিত্তিক ফাইল আকারে রাখা হচ্ছে। পরবর্তীতে এগুলো কম্পিউটারে ডাটাবেজ আকারে রাখা হবে। যাতে নিমিষেই কোনো জেলার ওয়ার্ড পর্যায়ের তথ্য সঙ্গে সঙ্গে পাওয়া যায়।

রাজশাহী ও রংপুরের দায়িত্ব থাকা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক এই প্রক্রিয়ার আবিস্কারক। তিনি মনে করেন, এর মাধ্যমে এই দুটি জেলার যেকোনো তথ্য নিমিষেই হাতের নাগালে থাকবে।

জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা যখন তৃণমূলের প্রতিনিধি সভাগুলোতে যাচ্ছি, তখন আমরা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতাদেরও ওই সভাগুলোতে সম্পৃক্ত করছি। এরপর আমার দায়িত্বপ্রাপ্ত রংপুর ও রাজশাহী এই দুটি বিভাগে বিশেষ করে তৃণমূল নেতাদের কিছু প্রশ্ন সম্বলিত একটি ফরম দেয়া হচ্ছে। পরে তাদের পূরণকৃত ফরম আমরা ঢাকায় নিয়ে আসছি। তাতে আমরা তৃণমূল থেকে যে তথ্য পাচ্ছি তা নিয়ে দলের একটি ডাটাবেজ নির্মাণ করবো।’

‘এর ফলে তৃণমূলের সকল তথ্য আমরা একসঙ্গে পাচ্ছি। পাশাপাশি ওই তৃণমূলেরর তথ্য সম্বলিত ফরমগুলো ফাইল আকারে আমরা সংরক্ষণ করবো। যেন নেত্রী ফাইলগুলো দেখতে পারেন।’

এই ফর্মের একটি কপি । ফর্মে নেতাদের কাছে বিভিন্ন প্রশ্ন রাখা হচ্ছে। যেমন-আপনার শাখার সাংগঠনিক অবস্থা কি? দলের অবস্থা কি? আপনার সংগঠনের সর্বশেষ সম্মেলন কবে হয়েছে? আপনার সংগঠনের পূর্ণাঙ্গ কমিটির কত সদস্য বিশিষ্ট? পূর্ণাঙ্গ না হলে কেন হয় নাই? কত দিনের মধ্যে সম্পন্ন করবেন? জেলার নেতৃবৃন্দ আপনার শাখায় সাংগঠনিক সফর করেছে কি? করে থাকলে কতবার করেছে? দলের কার্যালয় আছে কি? সহযোগী সংগঠনগুলোর কি অবস্থা? জননেত্রী, দেশরত্ন, সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার বিশ্বে সাড়া জাগানো উন্নয়ন, অগ্রগতি ও শান্তির বিষয়গুলো জনগণের মাঝে প্রচার করার কি কি পদক্ষেপ নিয়েছেন? সংসদ সদস্যের সাথে সমন্বয় আছে কি? নারী ও তরুণ নেতৃত্ব বিকাশে আপনার পরামর্শ-সংক্ষেপে মতামত; কেন মহিলা ভোটে আমরা পিছিয়ে থাকি, সংক্ষেপে মতামত; ধর্ম ব্যবসায়ীদের অপপ্রচার রোধে আমাদের করণীয়-সংক্ষেপে মতামত; বিরোধী সংগঠনের আওয়ামী লীগ বিরোধী অপপ্রচার ও আমাদের করণীয়-সংক্ষেপে মতামত; যৌথ কর্মীসভা/বর্ধিত সভায় অংশগ্রহণ করে আপনার অনুভূতি কি-সংক্ষেপে মতামত।  

তৃণমূলের তথ্য নেয়ার এই প্রক্রিয়াকে স্বাগত জানিয়ে নেতা-কর্মীরা বলছেন, এর মাধ্যমে কেন্দ্রের সাথে তৃণমূলে, বিশেষ করে ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাদের সাথে বন্ধন আরো বাড়বে এবং সংগঠন আরো বেশি শক্তিশালী হবে।

উত্তরণবার্তা/এআর



পুরনো খবর