লঞ্চের ভাড়া বাড়ছে না এখনই     বহিষ্কারাদেশ চ্যালেঞ্জ করবেন মাহাথির     বাস চলবে ১ জুন থেকে, খালি রাখতে হবে অর্ধেক আসন     স্থায়ী নিয়োগ পেলেন ১৮ বিচারপতি     করোনা রোগীর রক্তের নমুনা নিয়ে পালাল বানর     বাঁধ প্রকল্পের পাশাপাশি বৃক্ষরোপণের কোন বিকল্প নেই : জাহিদ ফারুক     প্রধানমন্ত্রী বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করেই ছুটি না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন : ওবায়দুল কাদের     ফেইসবুক লাইভে এসএসসির ফল জানাবেন শিক্ষামন্ত্রী    

দ্বিতীয় কিস্তির হাজার কোটি টাকা জমা দিল গ্রামীণফোন

  মে ২০, ২০২০     ৩৮     ১০:৫৩     আইন-আদালত
--

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক : নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির নিরীক্ষা দাবির সাড়ে ১২ হাজার কোটি টাকার মধ্যে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তির ১ হাজার কোটি টাকা জমা দিয়েছে গ্রামীণফোন। গতকাল মঙ্গলবার বিটিআরসিতে ১ হাজার কোটি টাকার চেক জমা দেয় তারা। এর আগে ২৩ ফেব্রুয়ারি বিটিআরসিতে ১ হাজার কোটি টাকা জমা দিয়েছিল গ্রামীণফোন।

মঙ্গলবার দুপুরে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিটিআরসি চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, সময়ের আগেই বিটিআরসিতে টাকা জমা দেয়ায় গ্রামীণফোনকে ধন্যবাদ জানাই। এটি রাষ্ট্রীয় অর্থ, জনগণের অর্থ। করোনা ক্রান্তিলগ্নে এই টাকা সরকারের উপকারে আসবে। বিটিআরসি চাঁদাবাজ না, আইন সংগত যা পাওনা তাই দাবি করা হয়।

বিটিআরসির কাছ থেকে গ্রামীণফোন তার ন্যায্য পাওনা পেতে থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, বর্তমান সিইওর সঙ্গে ভালো বোঝাপড়া রয়েছে এবং ভালোভাবে কাজ শুরু করা হয়েছে। যেসব এনওসি বন্ধ ছিল তার অনুমোদন দয়া শুরু হয়েছে এবং তা খুব দ্রুত এ অনুমোদন দেওয়া হচ্ছে। নিরীক্ষা দাবির বিষয়গুলো ভবিষ্যতে কীভাবে সুরাহা করা হবে জানতে চাইলে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, উভয় পক্ষ একসঙ্গে বসে একটি সিদ্ধান্তে আসা হবে। হিসাবে কম-বেশি হলে, গড়মিল থাকলে সঠিক তথ্য দিলে মেনে নেব। এখানে রি-অডিট করার প্রশ্নই আসে না।

অন্যান্য অপারেটরগুলোর নিরীক্ষা কবে নাগাদ শুরু হবে জানতে চাইলে জহুরুল হক বলেন, নিরীক্ষা প্রক্রিয়া শুরু করতে কয়েক মাস লেগে যায়, সব অপারেটরের অডিট করব, খুব শিগিগরই এয়ারটেলের নিরীক্ষা শুরু হচ্ছে।

গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইয়াসির আজমান বলেন, ‘আইন মেনে চলা প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব। প্রথম কিস্তির টাকা দিয়েছি এবং দ্বিতীয় কিস্তির চেক সময়ের আগেই বিটিআরসিতে জমা দিলাম। প্রথম কিস্তির টাকা জমা দেয়ার পরপরই বিটিআরসির কাছ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা পেয়ে আসছি।’

প্রসঙ্গত, বিটিআরসি বলে আসছে, গ্রামীণফোনের কাছে নিরীক্ষা আপত্তির ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকার পাশাপাশি রবির কাছে ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে তাদের। এই টাকা আদায়ে প্রথম ধাপে ব্যান্ডউইডথ কমিয়ে দিয়ে এবং দ্বিতীয় ধাপে বিভিন্ন ধরনের সেবার অনুমোদন ও অনাপত্তিপত্র দেয়া বন্ধ করে বিটিআরসি। আপিল বিভাগ গত ২৪ নভেম্বর গ্রামীণফোনকে ২ হাজার কোটি টাকা দিতে নির্দেশ দেয়।

উত্তরণবার্তা/এআর



পুরনো খবর